মাওলানা আকবর আলী’র জীবন ও কর্ম

প্রকাশিত: ৩:৩৪ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৪, ২০২১

জন্ম বাল্যকাল ও শিক্ষা: আলহাজ্ব মাওলানা আকবর আলী। ১৯৭৬ সালের ১০ই জিলহজ্জ পবিত্র ঈদুল আযহার দিনে শুক্রবার সকালে দিরাই উপজেলার জগদল গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন। তার পিতা আলহাজ্ব মুহাম্মদ আব্দুল করিম।মাতা মোছাঃ জামিলা খাতুন। পাঁচ ভাই তিন বোনের মধ্যে তিনি সর্বকনিষ্ট। লেখাপড়া শুরুহয় নিজ গ্রাম ‘জামেয়া আরবিয়া ইসলামিয়া জগদল’ থেকে প্রাথমিক শিক্ষার সূচনা। এরপর ‘সুনামগঞ্জ দারুল উলুম মাদানিয়া’ মাদ্রাসায় ভর্তি হয়ে ২বৎসর লেখাপড়া করেন।এরপর চলে আসেন সিলেটের ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ ‘জামেয়া মাদানিয়া কাজির বাজার মাদ্রাসায়’ এখানে ৩ বৎসর লেখাপড়া করার পর ১৯৯৯ সালে দাওরায়ে হাদিস সমাপ্তি করেন। রাজনীতি: মাওলানা আকবর আলী ছোটবেলা থেকেই লেখা পড়ার পাশাপাশি ছাত্র রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। ১৯৯৩ সালে সর্ব প্রথম ছাত্র জমিয়ত দিরাই থানা শাখার সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হোন। ১৯৯৭ ইং সালে সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্র জমিয়তের যুগ্ন সম্পাদক নির্বাচিত হন।এরই পাশাপাশি নিজ এলাকায় ২০০০ সালে জগদল ইউপি ইসলামী যুব সংঘ প্রতিষ্টা করেন। ২০০৫ সালে আল-হক ইসলামি সমাজ কল্যাণ পরিষদের সভাপতি নির্বাচিত হোন। ২০০৬ ‘আমরা দিরাই-শাল্লা বাসি’ (অবস্তানরত সিলেট) প্রতিষ্টা করেন। ১৯৯৭ সালে তাহার পিতার নামে ‘আল-করিম ফাউন্ডেশণ’ বাংলাদেশ নামক একটি সামাজিক সংগঠন প্রতিষ্টা করেন। এছাড়াও তিনি সিলেটের বহুল পরিচিত মাসিক আদর্শ নগরীর সম্পাদক। ‘আল-করিম ফাউনেশন বাংলাদেশ'র’ প্রতিষ্টাতা সভাপতি আমরা দিরাই শাল্লাবাসী অবস্তানরত সিলেটের প্রতিষ্টাতা সভাপতি ভাটি বাংলার প্রথম অনলাইন পত্রিকা দৈনিক ডাকবাংলা সিলেট এর সম্পাদক,এবং জাতীয় অনলাইন পত্রিকা দৈনিক জনপদের প্রতিষ্টাতা সম্পাদক,সহ আরো ও অনেক সামাজিক সংগঠনের সাথে জড়িত। ১৯৯৬ সালে সুনামগঞ্জে কাদিয়ানী ফেৎনায় ছাত্র জমিয়তের ব্যানারে নেতৃত্ব দানকারী ১৯৯৭ সালে সিলেট (ব্রাক এন জিও) খেদাও আন্দোলনের অগ্রসৈনিক ২০০৬ সনে ভারত কর্তৃক টিপাই মুখে বাদ নির্মানের প্রতিবাদ আন্দোলনে নেতৃত্বদানকারী সিলেটের ইসলামি আন্দোলনের তরুণ আলেমদের মধ্যে আলোচিত ব্যক্তিত্ব দিরাই শাল্লা উন্নয়ন সংগ্রাম পরিষদের প্রতিষ্টাতা চেয়ারম্যান ‘আল-করিম ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ’। সিলেটের তরুণ আলেমদের মধ্যে সর্বজন প্রিয় এবং বর্তমান সময়ের প্রবাসে ও রাজনৈতিক অঙ্গনে আলোচিত ব্যক্তিত্ব সুনামগঞ্জয়-০২ দিরাই-শাল্লা আসনের আগামী দিনের সম্ভাব্য প্রার্থী, এই তরুণ আলেম। কর্ম জীবন: শিক্ষা সমাপ্তির পর ২০০০ সালের এপ্রিল মাসে কর্মের সন্ধ্যানে চলে যান পবিত্র ভূমি সৌদি আরবে, সেখানে সর্ব প্রথম রিয়াদস্ত বাংলাদেশ দূতাবাসে কন্সুল্যার সেকশনে চাকুরী নেন। এখানে দীর্ঘ দিন কর্মজীবনের পাশা-পাশি সামাজিক ও সাংগঠনিক কাণ্ডে জড়িয়ে পড়েন। ২০০২ সালে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম রিয়াদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ও ইসলামি ঐক্যজোট রিয়াদের সহ-সভাপতির গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন।২০০৩ সালে রিয়াদস্ত মানফুহা নামক এলাকায় আল- ইহসান নামে একটি সেবা মূলক সামাজিক সংগঠন প্রতিষ্টা করেন। ২০০৪ সালে পবিত্র হজ্বব্রত পালন করে ২০০৪ সালের এপ্রিল মাসে নিজ দেশে চলে আসেন।তৎকালীন দেশের চলমান সঙ্কটের প্রতিবাদে আমরা দিরাই শাল্লা বাসি অবস্হানরত সিলেটের নেতৃত্বদেন মাওলানা আকবর আলী। ২০০৭ সালের বাংলাদেশ ৯ম জাতীয় নির্বাচনে সুনামগঞ্জ-০২ দিরাই-শাল্লা আসনে থেকে জমিয়তের প্রার্থী ছিলেন। তিনি বর্তমানে যুক্তরাজ্যে ম্যানচেস্টারে মারকাজে দারুল ইহসান নামক এই ইসলামী প্রতিষ্টানের গুরুত্ব পুর্ন দায়িত্ব পালন করে আসছেন দীর্ঘ দিন ধরে।।